গাংনীর ব্রজপুর গ্রামে নববধূর আত্মহত্যা ও প্রেমিকের বিষপান

meherpurerkanthomeherpurerkantho
  প্রকাশিত হয়েছেঃ  06:42 PM, 03 July 2023

গাংনী উপজেলার কাজীপুর ইউনিয়নের ব্রজপুর গ্রামে বরকে পাশের ঘরে রেখে রুবিনা খাতুন নামের এক নববধূ গলায় ওড়না পেঁচিয়ে আত্মহত্যা করেছেন। রুবিনার আত্মহত্যার খবর শুনে তার প্রেমিক রিংকু হোসেন বিষপানে আত্মহত্যার চেষ্টা করে অবশেষে ব্যর্থ হয়েছেন। প্রেমিকা রুবিনা  ব্রজপুর গ্রামের ঈদগাহপাড়ার রবিউল ইসলামের মেয়ে। প্রেমিক রিংকু একই উপজেলার বামন্দী ইউনিয়নের দেবীপুর গ্রামের ফইমুদ্দীনের ছেলে।
সোমবার সকাল সাড়ে ৯ টার সময় রুবিনার বাবার ঘর থেকে তার ঝুলন্ত মরদেহ উদ্ধার করে পুলিশ। এদিকে প্রেমিকার আত্মহত্যার খবর পেয়ে প্রেমিক রিংকু বিষপান অবস্থায় প্রেমিকার মৃত দেহ দেখতে গিয়ে মারাত্বক ভাবে অসুস্থ হয়ে পড়েন। এসময় স্থানীয়রা তা লক্ষ্য করে রিংকুকে উদ্ধার করে প্রথমে বামন্দী শহরের একটি ক্লিনিকে  নেয়। এসময় তার শারীরিক অবস্থার অবনতি হওয়ায় সেখান থেকে কুষ্টিয়া মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়।
স্থানীয়রা জানান,রুবিনা তার নানা বাড়ি দেবীপুর গ্রামে থেকে লেখাপড়া করতেন। সে সুবাদে রিংকুর কাছে তিনি প্রাইভেট পড়তেন। প্রাইভেট পড়ার মাধ্যমে তার মধ্যে প্রেমেজ সর্ম্পক গড়ে উঠে। গেলো  ঈদুল আযহার আগের দিন (বুধবার) রুবিনার বিয়ে হয় কুষ্টিয়ার দৌলতপুর উপজেলার নাটনাপাড়া গ্রামের সৈকত আলীর ছেলে সবুজ হোসেনের সাথে। ঈদ পালন করতে গত শুক্রবার স্বামীসহ রুবিনা তার বাবার বাড়ি অষ্টমঙ্গলে আসেন। বিয়ের ৫ দিনের মাথায় সোমবার সকালে রুবিনা বাবার বাড়ির একটি ঘরের আড়ার সাথে গলায় ওড়না পেঁচিয়ে আত্মহত্যা করেন। এসময় স্বামী সবুজ পাশের ঘরেই ছিলেন বলে জানা গেছে।
এদিকে রুবিনার আত্মহত্যার খবর শুনে তার প্রেমিক রিংকুও বিষপান করেন এবং অসুস্থ অবস্থায় রুবিনার মৃত দেহ দেখতে আসেন।
একটি সূত্র জানায় রুবিনা ও রিংকুর মধ্যে প্রেমেজ সম্পর্কের বিষয়টি তাদের দু’জনের পরিবারের সদস্যরা জানার পরও জোর করে রুবিনার অন্যত্রে বিয়ে দেয়। যার কারণেই এমনটি ঘটলো।
রুবিনার মা সুমাইয়া খাতুন জানান, মেয়ে কেন যে এমনটি করলো তা বুঝে উঠতে পারছিনা। তবে তার কোন প্রেমের সম্পর্ক ছিলোনা।
গাংনী থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) আব্দুর রাজ্জাক এ ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করেছেন। এসময় তিনি  জানান,এ ঘটনায় একটি অপ-
মৃত্যুর মামলা হয়েছে।

আপনার মতামত লিখুন :